টিএমএসএস এর কোভিড-১৯ ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

টিএমএসএস এর কোভিড-১৯ ব্যবস্থাপনার ৫১৬ দিন পূর্তি এবং টিএমসি ও আরসিএইচ এর কোভিড-১৯ ইউনিটের বর্ষপূর্তি উদ্যাপন উপলক্ষ্যে গতকাল সোমবার ঠেঙ্গামারা বগুড়ায় সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

টিএমএসএস মেডিকেল কলেজের শহীদ অধ্যাপক ডা. এ. কে. এম. মাসুদুর রহমান লেকচার গ্যালারীতে টিএমএসএস গ্র্যান্ড হেল্থ সেক্টরের আয়োজনে উক্ত সংবাদ সম্মেলনে প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক ছাড়াও ভার্চুয়াল জুম প্রোগ্রামের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ডাক্তার, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন পেশার প্রতিনিধিগণ অংশগ্রহণ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতুল্লাহ্ কমিউনিটি হাসপাতাল এর উদ্যোগে কোভিড-১৯ ব্যবস্থাপনার তথ্য তুলে ধরা হয়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ লিখিত বক্তব্যে বলেন, এক অভূতপূর্ব চ্যালেঞ্জের মধ্যে দিয়ে করোনা রোগীদের চিকিৎসা শুরু করে টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও রফাতুল্লাহ্ কমিউনিটি হাসপাতাল। ৩০ মে ২০২১ইং মাস পর্যন্ত এই হাসাপাতালের কোভিড ওয়ার্ড ও আইসিইউ ইউনিটে ২ হাজার ২শত ২৩ জন রোগীকে চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়েছে (পুরুষ ৭১% ও নারী ২৯%)। সুস্থ্য হয়ে বাড়ী ফিলেছেন ২ হাজার ১ শত ২৫ জন। সুস্থতার হার শতকরা ৯৫.৫৫ ভাগ। এই সময়ে চিকিৎসাধীন ৯৮ জন রোগী মৃত্যুবরণ করেছেন। মৃত্যুর শতকরা হার ৪.৪৫ ভাগ। আইসিইউ সাপোর্টে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে ৭৬ জন রোগীকে। রোগীদের নিরবিচ্ছিন্ন অক্সিজেন সরবরাহ নিশ্চিত করা হয়েছে। রি-ব্রিফিং মাস্ক এবং ভেনচুরি মাস্ক এগুলো ব্যবহার করেও রোগীদের অক্সিজেন স্যাচুরেশন নিয়ন্ত্রণে সফল হয়েছেন এই প্রতিষ্ঠানের চিকিৎসকগণ। রোগীদের বাড়তি অক্সিজেন প্রবাহ নিশ্চিত করতে ১০টি হাই-ফ্লো অক্সিজেন হিউমিডিফায়ার জেনারেটর ডিভাইস সেটাকে “হাই-ফ্লো অক্সিজেন ক্যানুলা” বলা হয় সেটা সংযুক্ত করা হয়। কোভিড চিকিৎসা ও ব্যবস্থাপনার উপরে পর্যন্ত প্রমানযোগ্য ধারণা প্রাপ্তির লক্ষ্যে ১৫টি গবেষণা প্রকল্প গ্রহণ করা হয় এবং যা চলমান রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও জানানো হয় চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত এ পর্যন্ত ৫ জন (২ জন চিকিৎসক ও ৩ জন কোভিড টেকনোলজিস্ট) কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন। কোভিড চিকিৎসা সেবায় নিয়োজিত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ডা. এ. কে. এম. মাসুদুর রহমান । তিনি মেডিসিন বিভাগের প্রধান ও কোভিড-১৯ ইউনিটের প্রধানের দায়িত্বে ছিলেন। কোভিড ওয়ার্ডে জনবলের মৃত্যুর হার শতকরা মাত্র ১.৩ ভাগ। যদিও দেশে করোনা আক্রান্তের ১১ শতাংশই স্বাস্থ্যকর্মী।

এখানে পিসিআর ল্যাবে কার্যক্রম শুরু হয় গত ৩১ মে ২০২০ইং তারিখে। ৩১ মে ২০২১ পর্যন্ত ২১ হাজার ৭শত ৭৯ জনের কোভিড-১৯ পরীক্ষা করে ৪ হাজার ৫শত ২৫ জন কোভিড পজিটিভ (২০.৮ ভাগ)। টিএমএসএস কোভিড কালীন বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক কার্যক্রম, অসহায় পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিতে মানবতা স্টোর পরিচালনা করে দেশব্যাপী মাস্ক, লিফলেট বিতরণ ও সভা সেমিনারের আয়োজন করে।

ভার্চুয়াল জুমের মাধ্যমে যুক্ত হয়ে সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের আইবিএ শিক্ষক প্রফেসর ড. হাসানাত আলী। টিএমএসএস’র প্রতিষ্ঠাতা নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপিকা ড. হোসনে আরা বেগম। ভার্চুয়াল বক্তব্যে বলেন, গণমাধ্যম দেশের চতুর্থ স্তম্ভ। তাদের প্রয়োজনে আমরা যে কোন তথ্য সরবরাহ করতে প্রস্তুত। উত্তরাঞ্চলের অবহেলিত মানুষদের স্বাস্থ্য সেবা দিতে আমরা বদ্ধপরিকর। ক্যান্সার হাসপাতাল স্থাপন সহ অবকাঠামোগত উন্নয়ন চলমান রয়েছে। এই হাসপাতালকে বিশ্বমানের করা হবে যাতে কাউকে আগামীতে বিদেশে গিয়ে চিকিৎসা নিতে না হয়। তিনি আরও বলেন, সাংবাদিক বুদ্ধিজীবীসহ বিভিন্ন পেশাজীবীরা এই হাসপাতাল থেকে বিশেষ সুবিধা পাবেন, তেমনি গরীব দুস্থরাও বঞ্চিত হবে না।

টিএমএসএস এর উপ-নির্বাহী পরিচালক ডা. মতিউর রহমান বলেন, সবার সহযোগিতায় আগামীতে স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে টিএমএসএস অঙ্গীকারবদ্ধ। লিখিত সংবাদ সম্মেলন পাঠ করেন টিএমএসএস এর নির্বাহী উপদেষ্টা (স্বাস্থ্য সেক্টর) প্রফেসর ডা. মওদুদ হোসেন আলমগীর পাভেল। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পরিচালক (হাসপাতাল) ডা. আ.স.ম বরকতুল্লাহ। উপস্থিত ছিলেন টিএমএসএস মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোঃ শাহজাহান আলী সরকার, টিএমসি’র মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. মোঃ আজিজুর রহমান, অধ্যাপক ডা. মোঃ জাকির হোসেন প্রমুখ।